pratilipi-logo প্রতিলিপি
বাংলা

হৃদয়ের টানে

4.3
12053

অনীক যেদিন আমাকে প্রপোজ করল আমি তো আনন্দে আটখানা । ওকে মনে মনে আমিও ভালোবাসি ।তবে ও যে আমাকেই পছন্দ করে জানতাম না । আজ বছর পাঁচের প্রেমের শেষে আমরা বিয়ের সাতপাকে আবদ্ধ হলাম ।শশুরবাড়ি আসানসোল এ নতুন ...

এখন পড়ুন
লেখক পরিচিতি
author
সুনেত্রা সরকার

কলেজে পড়ি । লিখতে ভালো লাগে । এতদিন ডায়েরিতেই লেখাগুলো সব আবদ্ধ থাকত। এখন অনেকের সামনে লেখাগুলো তুলে ধরতে পেরে ভালো লাগছে ।

রিভিউসমূহ
  • author
    আপনার রেটিং

  • মোট রিভিউ
  • author
    Ruma Baidya
    31 ऑगस्ट 2017
    Heat-touching.....last line porte gei hather hairs gulo straight hoye gelo
  • author
    Sourav Ghosh
    19 एप्रिल 2018
    বাহ এটা তুলনামূলক বেশ ভালো ....কিন্তু গল্পটা যেন আরো রসদ চাইছিলো। রসদের অভাবে খুব তাড়াতাড়ি শেষ হয়েছে....যেন জোর করে শেষ করা হয়েছে, তাই 5স্টার মাফিক হলো না
  • author
    Soumen Sen
    04 फेब्रुवारी 2024
    পিওর সেন্টিমেন্টাল ন্যাকামো, এগুলো কি গল্পের পর্যায়ে পড়ে ? বাংলা সিনেমার বোগাস গল্প গুলো ও এর চেয়ে অনেক বেশী বাস্তব মুখী ! যারা খারাপ তারা মরলো, ( শাশুড়ি ও অভ্র), যারা ভাল তারা বাঁচলো ( অমিত ও তার পালিকা মা), আরেকজন ( অনীক) লোভী মায়ের কথায় চলে সর্বস্বান্ত হলো । কী স্টোরিলাইন । ছ্যা । যে মহিলা সিঙ্গেল মাদার হিসাবে একটা অসুস্থ শিশুকে কে বড় করে তোলার গুরুদায়িত্ব নিতে পারে, সে কেন অনেক আগেই নিজের ছেলেকে সাথে নিয়ে স্বামীর ঘর ছাড়ল না ? বিশেষত যখন সে বুঝতে পারছে যে বাবার অতিরিক্ত আহ্লাদ পেয়ে ছেলেটি খারাপ দিকে চলতে শুরু করতে পারে ? কেউ তো একদিনেই উচ্ছন্নে যায় না ।সন্তানের জন্য মাকে লড়তে হবে, সব ছেড়ে দিয়ে কলকাতায় ফিরে এলে তো কোন সমস্যারই সমাধান হবে না । পতনের পিচ্ছিল পথে সন্তান পা বাড়ালে তার হাত শক্ত করে ধরে রেখে সেই পতন রোধ করার চেষ্টা তো মায়ের ই করা উচিত। যে মা নিজের সন্তানের স্বার্থে জীবনপণ করে লড়াই করতে পারে না অথচ ইগোর জন্য সন্তানের মুখদর্শন বন্ধ করতে পারে , তার মধ্যে কী মাতৃত্ব আদৌ আছে ? তার পক্ষে কী কোন বাচ্চা কে ই ভালোবাসা সম্ভব? বড্ড বেশী লোক দেখানো মহানুভবতা হয়ে গেল না কি ? এইসব মহিলার মাতৃত্ব কে নিয়ে গল্প লেখা আর গরু গাছে তোলা একই রকম জিনিস ।
  • author
    আপনার রেটিং

  • মোট রিভিউ
  • author
    Ruma Baidya
    31 ऑगस्ट 2017
    Heat-touching.....last line porte gei hather hairs gulo straight hoye gelo
  • author
    Sourav Ghosh
    19 एप्रिल 2018
    বাহ এটা তুলনামূলক বেশ ভালো ....কিন্তু গল্পটা যেন আরো রসদ চাইছিলো। রসদের অভাবে খুব তাড়াতাড়ি শেষ হয়েছে....যেন জোর করে শেষ করা হয়েছে, তাই 5স্টার মাফিক হলো না
  • author
    Soumen Sen
    04 फेब्रुवारी 2024
    পিওর সেন্টিমেন্টাল ন্যাকামো, এগুলো কি গল্পের পর্যায়ে পড়ে ? বাংলা সিনেমার বোগাস গল্প গুলো ও এর চেয়ে অনেক বেশী বাস্তব মুখী ! যারা খারাপ তারা মরলো, ( শাশুড়ি ও অভ্র), যারা ভাল তারা বাঁচলো ( অমিত ও তার পালিকা মা), আরেকজন ( অনীক) লোভী মায়ের কথায় চলে সর্বস্বান্ত হলো । কী স্টোরিলাইন । ছ্যা । যে মহিলা সিঙ্গেল মাদার হিসাবে একটা অসুস্থ শিশুকে কে বড় করে তোলার গুরুদায়িত্ব নিতে পারে, সে কেন অনেক আগেই নিজের ছেলেকে সাথে নিয়ে স্বামীর ঘর ছাড়ল না ? বিশেষত যখন সে বুঝতে পারছে যে বাবার অতিরিক্ত আহ্লাদ পেয়ে ছেলেটি খারাপ দিকে চলতে শুরু করতে পারে ? কেউ তো একদিনেই উচ্ছন্নে যায় না ।সন্তানের জন্য মাকে লড়তে হবে, সব ছেড়ে দিয়ে কলকাতায় ফিরে এলে তো কোন সমস্যারই সমাধান হবে না । পতনের পিচ্ছিল পথে সন্তান পা বাড়ালে তার হাত শক্ত করে ধরে রেখে সেই পতন রোধ করার চেষ্টা তো মায়ের ই করা উচিত। যে মা নিজের সন্তানের স্বার্থে জীবনপণ করে লড়াই করতে পারে না অথচ ইগোর জন্য সন্তানের মুখদর্শন বন্ধ করতে পারে , তার মধ্যে কী মাতৃত্ব আদৌ আছে ? তার পক্ষে কী কোন বাচ্চা কে ই ভালোবাসা সম্ভব? বড্ড বেশী লোক দেখানো মহানুভবতা হয়ে গেল না কি ? এইসব মহিলার মাতৃত্ব কে নিয়ে গল্প লেখা আর গরু গাছে তোলা একই রকম জিনিস ।